• পরীক্ষামূলক সম্প্রচার
  • বুধবার, ২০ জানুয়ারি ২০২১, ৬ মাঘ ১৪২৭
  • ||
  • আর্কাইভ

ব্রেকিং নিউজ

ফরিদগঞ্জে শত বছরের পুরানো রাস্তা বন্ধ দুর্ভোগে লোকজন

প্রকাশ:  ২৭ নভেম্বর ২০২০, ১১:৩৮
নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রিন্ট

একজন বীর মুক্তিযোদ্ধার নামে বাড়ির সামনে তোরণ নির্মাণের ঘটনাকে কেন্দ্র করে অভ্যন্তরীণ দ্বন্দ্বের জের ধরে প্রায় দেড়শ বছরের পুরানো একটি রাস্তা কেটে বেড়া দেয়ায় দুর্ভোগে পড়েছে ওই সড়ক দিয়ে চলাচলকারী লোকজন। ঘটনাটি ফরিদগঞ্জ উপজেলার গোবিন্দপুর দক্ষিণ ইউনিয়নের চরভাগল গ্রামে।


স্থানীয় লোকজন জানায়, চরভাগল গ্রামের বীর মুক্তিযোদ্ধা জাবেদ আলী মোক্তারের নামে যথাক্রমে গাজী বাড়ি, পাঠান বাড়ি ও মিজি বাড়ির প্রধান সড়কের সামনে একটি তোরণ নির্মাণের জন্যে সিদ্ধান্ত নেয় ওই বাড়ির লোকজন। কিন্তু এ তিন বাড়ির লোকজনের মধ্যে তোরণের নামকরণ নিয়ে বিরোধ সৃষ্টি হয়। এ ঘটনা নিয়ে দুই গ্রুপের মধ্যে সহিংসতার ঘটনাও ঘটে। পরে এ নিয়ে থানায় লিখিত অভিযোগ করলে ফরিদগঞ্জ থানার তৎকালীন অফিসার ইনচার্জ আব্দুর রকিবের উপস্থিতিতে কয়েক দফা সালিসের বৈঠকের পর চলতি বছরের সেপ্টেম্বর মাসে সকল বিরোধ নিষ্পত্তিকল্পে সিদ্ধান্ত হয়। সিদ্ধান্ত বিষয়ে মিজি বাড়ির রবিউল আলম জুয়েল জানান, সালিসের সর্বসম্মত সিদ্ধান্ত মোতাবেক বীর মুক্তিযোদ্ধা জাবেদ আলী মোক্তারের নামের পরিবর্তে তোরণের নামকরণ হবে শহীদ মুক্তিযোদ্ধা তোরণ। একই সাথে উভয় পক্ষের মানিত সালিসদের উপস্থিতিতে সকল জমিজমার পরিমাপের সিদ্ধান্ত হয়। কিন্তু সালিসের সিদ্ধান্ত মতে নির্ধারিত দিনে জমি পরিমাপের জন্যে লোকজন উপস্থিত হলেও পাঠান বাড়ির লোকজন জমি পরিমাপ জরিপের বিষয়ে অনাগ্রহ প্রকাশ করে।

 


পরবর্তীতে পাঠান বাড়ির জনৈক নান্নু পাঠান গংয়ের নেতৃত্বে কিছু লোক মিজি বাড়ির দিকে যাতায়াত করা শত বছরের পুরানো রাস্তা বাঁশ দিয়ে বেড়া দেয়। সর্বশেষ সপ্তাহ পূর্বে রাস্তার মাটি কেটে ফেলে এবং বাঁশ দিয়ে পুরো রাস্তাটি বন্ধ করে দেয়। ফলে বাধ্য হয়ে মিজি বাড়িসহ আশপাশের কয়েকটি বাড়ির শতশত লোকজনকে ৪ জন শহীদ মুক্তিযোদ্ধার কবরের পাশ দিয়ে খালের উপর বাঁশের সাঁকো তৈরি করে প্রতিদিন চলাচল করছে।

ওই বাড়ির বাসিন্দা মজিবুর রহমান, ইসমাইল মিজি, মাওঃ মিজানুর রহমান, ডাঃ জিএম রাব্বানী ও সোহাগ মাস্টার জানান, শত বছরের অধিক সময় ধরে চলাচল করা রাস্তাটি এভাবে বন্ধ করে দেয়া বেআইনী। আমরা সালিসের সিদ্ধান্তের অবমাননা করছি। আমরা পাঠান বাড়ির কাছ থেকে ওই রাস্তাসহ সাড়ে আট শতক জমি পাওনা রয়েছি। তারা পাওনা জমি দিতে টালবাহানা করতেই রাস্তা বন্ধ করে দিয়েছে। এ অবস্থায় বাধ্য হয়ে আপাতত খালের পাড় দিয়ে বিকল্প পথ দিয়ে চলাচল করছি।

অন্যদিকে পাঠান বাড়ির নান্নু পাঠান জানান, তারা আমাদের রাস্তা দিয়ে হাঁটবে না বলেছে, বিকল্প রাস্তাও বানিয়েছে। এছাড়া কবরস্থানের মর্যাদা রক্ষায় রাস্তা বন্ধ করে দিয়েছি। এছাড়া আমরা তাদের কাছে উল্টো জমি পাওনা রয়েছি।

সর্বাধিক পঠিত