• পরীক্ষামূলক সম্প্রচার
  • বৃহস্পতিবার, ২২ এপ্রিল ২০২১, ৯ বৈশাখ ১৪২৮
  • ||
  • আর্কাইভ

দেড় ঘন্টা বন্ধ ছিলো চাঁদপুর-কুমিল্লা আঞ্চলিক মহাসড়কের যান চলাচল

হাজীগঞ্জের টোরাগড়ে ভয়াবহ আগুনে পুড়ে গেছে বসতঘর ও ব্যবসা প্রতিষ্ঠান

প্রকাশ:  ০৫ এপ্রিল ২০২১, ১৪:১১
নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রিন্ট

হাজীগঞ্জ শহরের টোরাগড়ে মনির ফিলিং স্টেশনের বিপরীত পাশে ভয়াবহ আগুনে কোটি টাকার ক্ষতি হয়েছে বলে প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে। আগুনের লেলিহান শিখায় প্রায় ১০টি দোকান, বেশ ক’টি বসতঘর, জমিয়ে রাখা প্লাস্টিক বর্জ্যরে স্তূপ পুড়ে ছাই হয়ে গেছে। এ সময় আগুনের তাপে পাশের একটি মোবাইল ফোন টাওয়ারের ক্ষতিসাধন হয়।  হাজীগঞ্জ, শাহরাস্তি ও কচুয়ার দমকল বাহিনীর ৩টি ইউনিট প্রায় দুই ঘন্টা চেষ্টা শেষে আগুন নিয়ন্ত্রণে আনে।
স্থানীয়রা জানান, এদিন সন্ধ্যা ৭টার দিকে চারদিকে দমকা হাওয়া শুরু হয়। এ সময় উক্ত স্থান দিয়ে চলে যাওয়া উচ্চ ক্ষমতাসম্পন্ন বৈদ্যুতিক সঞ্চালন লাইনের সাথে পাশের একটি খেজুর গাছের শুকনো ডালের স্পার্ক হয়। এ সময় খেজুর গাছের শুকনো ডালটিতে আগুন লেগে সেই আগুন নিচে জমিয়ে রাখা স্তূপীকৃত প্লাস্টিক বর্জ্যরে উপর পড়ে। প্লাস্টিকের স্তূপে আগুন পড়ে তা মুহূর্তের মধ্যে দাউ দাউ করে জ্বলে উঠে।
অগ্নিকা-ে ক্ষতিগ্রস্তরা হলেন : কামরুল কাজী ও কবিরের ভাঙ্গারী দোকান, আউয়ালের প্লাস্টিকের ক্যারটের দোকান, নজরুলের মুদি দোকান, কবির হোসেনের মুদি দোকান ও মজনুর মুদি দোকান, টিটুর ওয়ার্কশপ, নুরু ডাক্তারের ফার্মেসী, আফিজ উদ্দিন, সাহাজ উদ্দিনের বসতঘর ও কাদের মোল্লার বসতঘর।
প্রত্যক্ষদর্শী ও স্থানীয় মিজানুর রহমান ও রানা জানান, সন্ধ্যার পর পর ধূলাবালি উড়িয়ে দমকা হাওয়া শুরু হয়। এ সময় এখানে থাকা খেজুর গাছের ডালের সাথে বিদ্যুতের স্পার্ক হয়ে খেজুর গাছের ডাল পুড়ে নিচে প্লাস্টিকের স্তূপে পড়ে আগুন লেগে যায়। আমরা কিছু বুঝে ওঠার আগেই প্লাস্টিকের স্তূপের আগুন চারদিকে ছড়িয়ে পড়ে।
এদিকে খবর পেয়ে সাথে হাজীগঞ্জ দমকল বাহিনী ও থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে। কিন্তু আগুনের লেলিহান শিখা এতোটাই ভয়াবহ অবস্থায় পৌঁছে যে, কেউ এগিয়ে আগুনে পানি দেয়া দূরের কথা, দমকল বাহিনীর পানিই ছিলো আগুনের কাছে তুচ্ছ। এমতাবস্থায় খবর দেয়া হয় শাহরাস্তি ও কচুয়ার দমকল বাহিনীকে। দমকল বাহিনীর ৩টি ইউনিট স্থানীয়দের সহযোগিতায় প্রায় দু ঘন্টা চেষ্টার পর আগুন নিয়ন্ত্রণে আনে।
এদিকে আগুন লাগার সাথে সাথে চাঁদপুর-কুমিল্লা আঞ্চলিক মহাসড়কের উক্ত স্থান দিয়ে সড়কে সকল ধরনের যান চলাচল বন্ধ হয়ে যায়।
এ বিষয়ে হাজীগঞ্জ থানার অফিসার ইনচার্জ হারুনুর রশিদ বলেন, নিচে প্লাস্টিকের জমানো স্তূপ না থাকলে হয়তো এতোটা ক্ষতি হতো না।
এদিকে এ সংবাদ লিখা পর্যন্ত হাজীগঞ্জ দমকল বাহিনী ঘটনাস্থলে অবস্থান করায় প্রাথমিক ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ জানা সম্ভব হয়নি।