• পরীক্ষামূলক সম্প্রচার
  • মঙ্গলবার, ০৯ মার্চ ২০২১, ২৪ ফাল্গুন ১৪২৭
  • ||
  • আর্কাইভ

ব্রেকিং নিউজ

চাঁদপুর প্রেসক্লাবের সুবর্ণজয়ন্তীতে বিদগ্ধ সাংবাদিকদের আজীবন সম্মাননা, সংবর্ধনা, মরণোত্তর সংবর্ধণা এবং করোনাকালীন যোদ্ধাদের সংবর্ধনা ও সম্মাননা প্রদান

যাঁদেরকে সংবর্ধনা এবং সম্মাননা দেয়া হয়েছে তাঁরা আলোকিত এবং স্ব স্ব ক্ষেত্রে বিজ্ঞ মানুষ

শিক্ষামন্ত্রী ডাঃ দীপু মনি এমপি

প্রকাশ:  ০৬ জানুয়ারি ২০২১, ১০:৪৭
নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রিন্ট

চাঁদপুর প্রেসক্লাবের সুবর্ণজয়ন্তীতে গুণী, কৃতী সাংবাদিকদের সম্মাননা, মরণোত্তর সংবর্ধনা এবং বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান, সংগঠনসহ করোনাকালীন যোদ্ধাদের সংবর্ধনা ও সম্মাননা দেয়া হয়েছে। গত ৪ জানুয়ারি সোমবার সকাল পৌনে ৯টায় বর্ণাঢ্য র‌্যালির মধ্য দিয়ে সুবর্ণজয়ন্তী অনুষ্ঠানের শুভ সূচনা হয়। বিকেল ৪টায় শুরু হয় প্রেসক্লাবের গৌরবের ৫০ বছরপূর্তি উৎসব তথা সুবর্ণজয়ন্তী অনুষ্ঠান। অনুষ্ঠান মঞ্চে সংবর্ধনা ও সম্মাননা প্রদান অনুষ্ঠিত হয়।

ভার্চুয়াল পদ্ধতিতে আলোচনায় যুক্ত হয়ে উৎসব অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি শিক্ষামন্ত্রী ডাঃ দীপু মনি এমপি বক্তব্য রাখেন। তিনি তাঁর বক্তব্যে বলেন, সাংবাদিকতার বড় জিনিস হচ্ছে বস্তুনিষ্ঠতা। সমাজের যেসব অসঙ্গতি, দুর্নীতি, সমস্যা আছে তা তুলে ধরা এবং ইতিবাচক অনুপ্রেরণার যে জায়গাগুলো আছে সেগুলোকেও তুলে ধরা। তাতে মানুষ অনুপ্রাণিত হবে।

বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন জেলা প্রশাসক অঞ্জনা খান মজলিশ, দেশের প্রখ্যাত সাংবাদিক, চাঁদপুরের কৃতী সন্তান দৈনিক যুগান্তরের সম্পাদক জাতীয় প্রেসক্লাবের সভাপতি সাইফুল আলম, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের সাবেক চেয়ারম্যান প্রফেসর ড. মফিজুর রহমান, বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের তথ্য ও গবেষণা বিষয়ক সম্পাদক ড. সেলিম মাহমুদ, চাঁদপুর প্রেসক্লাবের আজীবন সদস্য ও জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি ডাঃ জেআর ওয়াদুদ টিপু ও চাঁদপুর পৌরসভার মেয়র অ্যাডঃ জিল্লুর রহমান জুয়েল এবং বাংলাদেশের আইটি বিশেষজ্ঞ ও ড্যাফোডিল পরিবারের চেয়ারম্যান ড. মোঃ সবুর খান, হাজীগঞ্জের কৃতী সন্তান শিল্পপতি ও সিআইপি জয়নাল আবেদীন মজুমদার, অনুভূতি প্রকাশ করে সংবর্ধিত অতিথিদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন সিভিল সার্জন ডাঃ সাখাওয়াত উল্লাহ ও চাঁদপুর প্রেসক্লাবের আজীবন সম্মাননাপ্রাপ্ত সাবেক সভাপতি চাঁদপুর কণ্ঠের প্রধান সম্পাদক রোটারিয়ান কাজী শাহাদাত।

অনু্ষ্ঠানে সভাপ্রধানের বক্তব্য রাখেন প্রেসক্লাবের ২০২০ সালের কার্যকরী পরিষদের সভাপতি (ভারপ্রাপ্ত) ও সুবর্ণজয়ন্তী উদ্যাপন পরিষদের আহ্বায়ক গিয়াস উদ্দিন মিলন। প্রেসক্লাবের ২০২০ সালের কার্যনির্বাহী পরিষদের সাধারণ সম্পাদক এএইচএম আহসান উল্লাহ এবং ২০২১ সালের সাধারণ সম্পাদক রহিম বাদশার পরিচালনায় অনুষ্ঠানে সংবর্ধিত অতিথি অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) মোহাম্মদ আব্দুল্লাহ আল মাহমুদ জামান, ঢাকাপোস্টের সম্পাদক মহিউদ্দিন সরকার, দৈনিক বাণিজ্য প্রতিদিন সম্পাদক রাশেদ শাহরিয়ার পলাশসহ প্রশাসনিক কর্মকর্তা, জনপ্রতিনিধি, রাজনীতিবিদ, আমন্ত্রিত অন্য অতিথিগণ এবং যাদের নিয়ে এ অনুষ্ঠান সকল পর্যায়ের সাংবাদিক উপস্থিত ছিলেন।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে শিক্ষামন্ত্রী ও চাঁদপুর-৩ (চাঁদপুর সদর ও হাইমচর) আসনের সংসদ সদস্য ডাঃ দীপু মনি আরো বলেন, এ সুবর্ণজয়ন্তী আমার জন্যে বিশেষ একটি অনুষ্ঠান। তার কারণ হচ্ছে, আমি প্রেসক্লাব ও সাংবাদিক পরিবারের মানুষ। বাবার সূত্রে আমি তো সংবাদপত্র প্রেসের মধ্যে দৌড়াদৌড়ি করেই বড় হয়েছি। কাজেই সাংবাদিকদের সঙ্গে আমার পারিবারিক ঘনিষ্ঠতা আছে। সেটাকেও ছাপিয়ে আমি এবং আমার ভাই ডাঃ জেআর ওয়াদুদ টিপুর সাংবাদিকদের সাথে আমাদের গভীর একটা আত্মার সম্পর্ক রয়েছে। কাজেই এই সাংবাদিকতার জগতে যখন ভালো কিছু দেখি আমরা দারুণভাবে উদ্বুদ্ধ ও অনুপ্রাণিত হই এবং আমাদের ভীষণ ভালো লাগে। আর যখন তাদের কোথাও কোনো সমস্যা চোখে পড়ে তখন সেটা আমাদেরকে পীড়া দেয়। আমরা মনে করি সেখানে আমাদের কিছু করার আছে সেই সমস্যা দূর করার জন্যে।

তিনি বলেন, চাঁদপুর প্রেসক্লাবের যারা সদস্য আছেন তারা আমাদের খুব আপন মানুষ এবং দিনব্যাপী অনুষ্ঠানে তারা তাদের পরিবারকে সম্পৃক্ত করে পারিবারিক মিলনমেলায় পরিণত করেছে। সত্যিই অসাধারণ একটি অনুষ্ঠান। আমি সেই পরিবারের অংশ। যদিও আজকে আমি সরাসরি আসতে পারিনি। কিন্তু ভার্চুয়ালি যুক্ত হয়ে আমি অত্যন্ত আনন্দিত। সাধারণত আমি প্রেসক্লাবের অনুষ্ঠান মিস করি না। আপনারা জানেন, করোনার কারণে এবং অতিসম্প্রতি আমি করোনায় আক্রান্ত হয়ে ছিলাম। সবাই আমার জন্যে দোয়া করেছেন। এজন্যে সবার প্রতি কৃতজ্ঞতা জানাই। সে কারণেই অনুষ্ঠানে আমার আসা সম্ভব হয়নি।

মন্ত্রী বলেন, যাঁদেরকে সংবর্ধনা এবং সম্মাননা দেয়া হয়েছে তাঁরা আলোকিত এবং স্ব স্ব ক্ষেত্রে বিজ্ঞ মানুষ। বিশেষ করে করোনাকালীন সঙ্কট মুহূর্তে যারা জীবনবাজি রেখে মানুষের পাশে দাঁড়িয়েছেন এবং থেকেছেন তাদেরকে সম্মানিত করায় আমাকে অনুপ্রাণিত করেছে। পরিশেষে সাংবাদিকদের তিনি শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন জানান।

প্রেসক্লাবের সুবর্ণজয়ন্তীতে করোনাকালীন মানুষের সেবায় অবদান রাখার স্বীকৃতিস্বরূপ চাঁদপুর জেলা প্রশাসন, আড়াইশ' শয্যাবিশিষ্ট চাঁদপুর জেলা হাসপাতাল, সিভিল সার্জন, ভাষাবীর এমএ ওয়াদুদ মেমোরিয়াল ট্রাস্ট, স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ চাঁদপুর, কিউআরসিকে এবং করোনার সম্মুখযোদ্ধা চিকিৎসক, নার্স ও মেডিকেল টেকনোলজিস্টদের সংবর্ধিত করা হয়। এছাড়া বহুমাত্রিক প্রতিভার জন্যে কৃতী সাংবাদিক চাঁদপুর প্রেসক্লাবের সাবেক সভাপতি, চাঁদপুর কণ্ঠের প্রধান সম্পাদক রোটারিয়ান কাজী শাহাদাতকে দেয়া হয় আজীবন সম্মাননা। এছাড়া চাঁদপুর প্রেসক্লাবের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি মরহুম আব্দুল খালেক চৌধুরী, সাবেক সভাপতি মরহুম ইকরাম চৌধুরী ও মরহুম শাহ মোহাম্মদ মাকসুদুল আলমকে মরণোত্তর সংবর্ধণা জানানো হয়েছে।

 


করোনার সময় জীবনবাজি রেখে সেবামূলক কাজ করায় মৃত ব্যক্তিদের লাশ দাফনে ইসলামী আন্দোলন চাঁদপুর জেলার স্বেচ্ছাসেবী টিমের নেতৃবৃন্দ, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) মোহাম্মদ আব্দুল্লাহ আল মাহমুদ জামান, চাঁদপুরে একমাত্র আরটি পিসিআর ল্যাব স্থাপনে ভাষাবীর এমএ ওয়াদুদ মেমোরিয়াল ট্রাস্টের পক্ষে ট্রাস্টি ডাঃ জেআর ওয়াদুদ টিপু, স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন কিউআরসির কর্ণধার পৌর মেয়র অ্যাডঃ জিল্লুর রহমান জুয়েল এবং কিউআরসির দুই স্বেচ্ছাসেবী মেহেদী হাসান ও নাজমুল হাসান বাঁধন, করোনা চিকিৎসা কার্যক্রম ব্যবস্থাপনায় নেতৃত্বে থাকা সিভিল সার্জন ডাঃ মোঃ সাখাওয়াত উল্লাহ, আড়াইশ' শয্যাবিশিষ্ট চাঁদপুর জেনারেল হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক ডাঃ হাবিব-উল-করিম, করোনা বিষয়ক ফোকালপার্সন ডাঃ সুজাউদ্দৌলা রুবেল, তাঁর স্ত্রী সদর উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডাঃ সাজেদা বেগম পলিন, হাসপাতালের কোভিড-১৯ ওয়ার্ডের সিনিয়র স্টাফ নার্স (ইনচার্জ) ফেরদৌসি জাহান লাভলী, করোনার নমুনা সংগ্রহকারী মেডিকেল টেকনোলজিস্ট আঃ মালেক মিয়াজী ও সিরাজুল ইসলামকে সংবর্ধিত করা হয়।

 


এছাড়া করোনাকালে জনগণের পাশে থাকা করোনাজয়ী প্রেসক্লাব সদস্য ফরিদগঞ্জ উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান অ্যাডঃ জাহিদুল ইসলাম রোমান, সদর উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান আইয়ুব আলী বেপারীকে সংবর্ধনা দয়ো হয়। আর এবং ৯ ঘণ্টার ব্যবধানে করোনায় আক্রান্ত হয়ে বাবা-মা মৃত্যু হওয়ায় প্রেসক্লাবের সম্মানিক সদস্য আনোয়ার হাবিব কাজলকে সমবেদনাপত্র দেয়া হয়। তাঁদের হাতে অতিথিবৃন্দ সম্মাননাপত্রসহ ক্রেস্ট ও মেডেল তুলে দেন। মরণোত্তর সংবর্ধনা ক্রেস্ট গ্রহণ করেন তাঁদের পরিবারের সদস্যগণ।

৪ জানুয়ারি ২০২১ সোমবার সকাল সোয়া ৯টায় পায়রা উড়িয়ে চাঁদপুর প্রেসক্লাবের গৌরবের ৫০ বছরপূর্তি উৎসব উদ্বোধন করেন চাঁদপুর প্রেসক্লাবের প্রতিষ্ঠাকালীন সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক মোহাম্মদ হোসেন খান।

সংক্ষিপ্ত উদ্বোধন শেষে বর্ণাঢ্য র‌্যালির মাধ্যমে দিনব্যাপী অনুষ্ঠানের শুভসূচনা হয়। র‌্যালিতে প্রেসক্লাবের কর্মকর্তা, সদস্যবৃন্দ এবং সকল পর্যায়ের সাংবাদিকসহ অন্যরা অংশগ্রহণ করেন।

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন চাঁদপুর জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও প্রেসক্লাবের অবকাঠামো অবকাঠামো উন্নয়ন উপ-কমিটির আহ্বায়ক আলহাজ্ব ওচমান গনি পাটওয়ারী। এ সময় প্রয়াত সাংবাদিক কামরুজ্জামান চৌধুরী, ইকরাম চৌধুরী, মাকসুদুল আলম, একেএম শফিউল্লাহ সরকার স্মরণে দাঁড়িয়ে এক মিনিট নীরবতা পালন করা হয় এবং তাঁদের রুহের মাগফেরাত কামনায় দোয়া ও মোনাজাত করা হয়। এছাড়া উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে উপস্থিত প্রেসক্লাবের প্রতিষ্ঠাকালীন সদস্য অধ্যাপক মোহাম্মদ হোসেন খান ও শংকর চন্দ্র দের প্রতি সকল সাংবাদিক দাঁড়িয়ে সম্মান জানান।

প্রেসক্লাবের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি গিয়াসউদ্দিন মিলনের সভাপ্রধানে ও সাধারণ সম্পাদক এএইচএম আহসান উল্লাহর সঞ্চালনায় উৎসবের উদ্বোধনী অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়।

সর্বাধিক পঠিত