• পরীক্ষামূলক সম্প্রচার
  • বুধবার, ২০ জানুয়ারি ২০২১, ৬ মাঘ ১৪২৭
  • ||
  • আর্কাইভ

ব্রেকিং নিউজ

চাঁদপুর লঞ্চঘাটে যাত্রী হয়রানি বন্ধে পুলিশের অভিযান শুরু প্রথমদিনেই আটক ২১

প্রকাশ:  ২৭ নভেম্বর ২০২০, ১১:৪০
নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রিন্ট

চাঁদপুর লঞ্চঘাটে যাত্রী হয়রানি বন্ধে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর ঝটিকা অভিযান শুরু হয়েছে। গতকাল ২৬ নভেম্বর বৃহস্পতিবার সন্ধ্যার পর অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর সার্কেল) স্নিগ্ধা সরকারের নেতৃত্বে চাঁদপুর সদর মডেল থানা পুলিশ ও জেলা ডিবি পুলিশ এ অভিযান পরিচালনা করে। এ সময় যাত্রী হয়রানির অভিযোগে ২১ জন সিএনজি অটোরিকশার ড্রাইভারকে আটক করা হয়।


অভিযান প্রসঙ্গে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর সার্কেল) স্নিগ্ধা সরকার সাংবাদিকদের বলেন, অনেক অভিযোগ আসছিলো লঞ্চঘাটে যাত্রীদের হয়রানি করা হয়। সিএনজি অটোরিকশা ড্রাইভার যারা আছে, তারা চিৎকার-চেঁচামেচি ও যাত্রীদের জিনিসপত্র টানাটানি করে এবং রিসিট ছাড়া অনেকেই চাঁদা আদায় করে। সেজন্যে প্রায় ২০-২৫ দিন আগে সব স্ট্যাক হোল্ডারদের নিয়ে আমরা একটি সমন্বয় সভা করেছিলাম। সিএনজি অটোরিকশার ড্রাইভার থেকে শুরু করে ইজারাদার ও বিআইডবিস্নউটিএর কর্মকর্তা, সাংবাদিক এবং স্থানীয়রা সে সভায় উপস্থিত ছিলেন। সে সভায় আমরা তাদেরকে কিছু দিকনির্দেশনা দিয়েছিলাম যে পোশাক পরার জন্যে, আর যারা কুলি বা ইজারাদার তারা নির্দিষ্ট স্থান থেকে ইজারা সংগ্রহ করবে। কিন্তু তারা সেটা মানেনি এবং আমরা বলেছিলামও আমরা আপনাদেরকে ৭ দিন সময় দিচ্ছি। তারপর থেকে আমরা অভিযান করবো। আমরা ৭ দিনের চেয়েও বেশি প্রায় ১৫ দিন সময় দিয়েছি। অথচ তারা তাদের সেই আচরণই বজায় রেখেছে। তারা নিয়মিত যাত্রীদের হয়রানি করছে, যাত্রীদের জিনিসপত্র নিয়ে টানাটানি করছে। যার কারণে আজকের এ অভিযান। লঞ্চঘাটকে দালালমুক্ত, যাত্রী হয়রানি বন্ধ না হওয়া পর্যন্ত আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর অভিযান চলবে। এক্ষেত্রে কাউকে কোনো ধরনের ছাড় দেয়া হবে না।

 


অভিযানে আরও অংশ নেন চাঁদপুর সদর মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ নাসিম উদ্দিন, পরিদর্শক (তদস্ত) হারুনুর রশিদ, টিআই সাইফুল ইসলাম, জেলা গোয়েন্দ সংস্থা (ডিবি)-এর এসআই অনুপসহ চাঁদপুর সদর মডেল থানা, জেলা গোয়েন্দা শাখার পুলিশ ফোর্স।
উল্লেখ্য, গত ৯ নভেম্বর (সোমবার) সকালে চাঁদপুর মডেল থানার ব্যবস্থাপনায় চাঁদপুর নৌ থানায় যাত্রী হয়রানি প্রতিরোধে এক মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত হয়। উক্ত সভায় ঘোষণা দেয়া হয়, সিএনজি অটোরিকশা চালক ও পোশাকবিহীন লেবাররা গ্যাংওয়েতে প্রবেশ করতে পারবে না। যদি তারা তা অমান্য করে তাদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। রেজিস্ট্রেশনবিহীন অটোরিকশা সিএনজি ঘাটে প্রবেশ করতে পারবে না। ঘাট ইজারা টোল আদায়ে নির্দিষ্ট স্থান থাকতে হবে। সিএনজি অটোরিকশা চালকদের নির্দিষ্ট পোশাক পরিহিত থাকতে হবে। এসব সিদ্ধান্ত দৃশ্যমান করতে ৭ দিন সময় বেঁধে দেয়া হয়। পরবর্তীতে সেই ৭ দিন অতিবাহিত হলে গতকাল শুরু হয় অভিযান।

সর্বাধিক পঠিত