• পরীক্ষামূলক সম্প্রচার
  • শুক্রবার, ২৭ নভেম্বর ২০২০, ১২ অগ্রহায়ণ ১৪২৭
  • ||
  • আর্কাইভ

ব্রেকিং নিউজ

করোনা সংক্রমণে বিলুপ্তির পথে ইকুয়েডরের ‘সিয়েকোপাই’ আদিবাসী

প্রকাশ:  ১৮ মে ২০২০, ১৩:৫২ | আপডেট : ১৮ মে ২০২০, ১৩:৫৫
নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রিন্ট

শংকরলাল দাশ :: দক্ষিণ আমেরিকার উত্তর-পশ্চিম সীমান্তের দেশ ইকুয়েডর। ২ লাখ ৫৬ হাজার বর্গকিলোমিটার আয়তনের দেশটির জনসংখ্যা দেড় কোটিরও বেশি। এক সময়ে দেশটি স্পেনের কলোনী ছিল। ১৮২২ সালে দেশটি স্বাধীনতা লাভ করে। দেশটি এক সময়ে কৃষি ও পেট্রোলিয়ামে সমৃদ্ধ ছিল। কিন্তু এখন অর্থনৈতিক ভাবে দুর্বল। দেশটিতে প্রচুর আদিবাসী জনগোষ্ঠির বাস। আদিবাসীরা আমেরিকানদের মিশ্র জাতির লোক। এবং প্রায় সব আদিবাসী লোকজনই হতদরিদ্র। এমনই একটি দরিদ্র আদিবাসীর নাম ‘সিয়েকোপাই’। বিশ্বব্যপী করোনা সংক্রমণের ছোবল থেকে রক্ষা পাচ্ছেন না এ জনগোষ্টির মানুষও। তাদের করোনা পরীক্ষা নেই। চিকিৎসা নেই। অথচ বাড়ছে সংক্রমণ। এ অবস্থায় অনেকেই আমাজনের গভীর জঙ্গলে আশ্রয় নিয়ে লতাপাতা খেয়ে জীবন বাঁচানোর চেষ্টা করছেন। কিন্তু এতেও রক্ষা পাচ্ছে না আদিবাসী জনগোষ্টির লোকজন। বরং গোটা সম্প্রদায়ই এখন বিলুপ্তির আশঙ্কায় প্রহর গুনছে।

করোনা সংক্রমণে দিশেহারা হয়ে পড়েছে বিশাল দেশ আমেরিকা। পৃথিবীর অন্যতম ধনী দেশটিতে প্রতিদিন বাড়ছে কোভিড/উনিশে মৃতের সংখ্যা। প্রধান প্রধান গণমাধ্যম ও সোশ্যাল মিডিয়ায় দেখা গেছে, করোনায় মৃত মানুষের দেহ পড়ে রয়েছে রাস্তাঘাটে। আমেরিকার পার্শ্ববর্তী দেশের সুবাদে গণমাধ্যমের সামনে এসেছে ইকুয়েডর দেশটির কথা। এর মধ্যেই প্রশান্ত মহাসাগর উপকূলের ইকুয়েডর-পেরু সীমান্তের আদিবাসী মানুষদের মাঝে করোনা সংক্রমণের আতঙ্ক তৈরি করেছে। এখানকার সিয়েকোপাই নামে পরিচিত আদিবাসীরাও আশঙ্কা করছেন, এই মহামারীর কারণে তাদের গোটা সম্প্রদায়ই হয়তো বিলুপ্ত হয়ে যেতে পারে। সম্প্রদায়ের অনেকেই করোনা সংক্রমণ থেকে বাঁচতে আমাজনের ঘন জঙ্গলে পালিয়ে গেছেন। কিন্তু এর ফলে বিপদ বাড়ছে বৈ কমছে না।